লোকাল মার্কেটে কোন অ্যাপের জন্য কেমন চার্জ করবেন

লোকাল মার্কেটে কোন অ্যাপের জন্য কেমন চার্জ করবেন, এটা একটা জটিল কাজ। আমি চেষ্টা করি লোকাল মার্কেটে কাজ ইগ্নোর করতে। কারন এরা ডেভেলপারদের ভেল্যু দিতে জানেনা। এর ভাবে ১/২ হাজার টাকা দিয়েই তো ছোট্ট এই একটা অ্যাপ বানায়ে ফেলা যায়! তবে এক্সেপশনও আছে, যাদের সাথে কাজ করা যায় এবং মজা আছে। আমার মনে হয় ইন্টারন্যাশনালী করার মত প্রচুর কাজ আছে।

তবে এখানে একটা ইকোসিস্টেম কাজ করে। এক পর্যায়ের ডেভেলপার এর জন্য লোকাল ওয়েব মার্কেট নষ্ট হয়ে গেছে। যেমন, এক জায়গায় আমি একবার একটা পিএইচপি দিয়ে কাস্টম ওয়েব সাইট ডেভেলপের জন্য কথা বলতে গেসি, কোম্পানী এমডি বলে, সাইট তো ১/২ হাজার টাকা দিয়ে করা যায়, রাস্তায় বিজ্ঞাপন দেখে! আমি বললাম তাহলে ওদের দিয়ে করান! কিছু বাজে কোম্পানী মেন্টালিটি কোন জায়গায় নিয়ে যাচ্ছে ক্লায়েন্টদের।

আমরা পারিনা এমন কাজ নাই, অ্যাপের মার্কেট নষ্ট করাও আমাদের জন্য অসম্ভব কিছুনা! এক সময় দেখা যাবে ১ হাজার টাকা দিয়ে সার্ভার ক্লায়েন্ট আর্কিটেকচারের কাজ করে দিচ্ছে ডেভেলপাররা। হাহা। অবশ্য হতাশ হওয়ার কিছু নেই। ভালো কোয়ালিটি কাজের ডিমান্ড কোনদিন কমে না।

 

android apps developing charge in bangladesh

 

আমাদের দেশি লোকাল ক্লায়েন্টদের কাছ থেকে ভাল কোয়ালিটি কাজ করে টাকা বের করা খুব কঠিন। দেশের টপ লেভেল কোম্পানীর সাথে কাজ করেও শান্তি নাই। পেমেন্ট নিয়ে ঝামেলা করবেই! মাছের বাজারের মাছের মত প্রোডাক্টের দাম নিয়ে কাড়াকাড়ি করবে! ডেভেলপাররা সাধারনত এসব মার্কেটিং/সেলস টাইপ কাজে পোক্ত না। তাই লোকাল ক্লায়েন্ট এই সুযোগ নেয়।

যাই হোক, অ্যান্ড্রয়েড লাইম এভারেজে ১০০-২০০ মানুষ পড়ে প্রতিদিন। এদের মধ্যে সিংহ ভাগ হচ্ছে ডেভেলপার। তাদের সাথে আমি আমার মতামত শেয়ার করি। আমি যেভাবে চার্জ করি, সেটা বল্বো এখানে। আপনাদের চার্জ করা সম্পর্কে অবশ্যই বলবেন।

 

আমি মুলত দুইটা ফ্যাক্টর চিন্তা করি, কত সময় লাগবে ডেভেলপ করতে। কতটা ডেপথ কাজের। যেভাবে চার্জ করা যায়,
১/ সম্পুর্ন স্ট্যাটিক অ্যাপ – ৮,০০০ টাকা থেকে শুরু। ভালো সম্পর্ক ভাবে ফিচারের আরো কাজের স্কোপ আছে এমন কাজে ১০ থেকে ১৫ পার্সেন্ট ছাড় দিতে পারেন।
২/ তথ্যভিত্তিক অ্যাপের সাথে ডায়নাকিম কিছু ফিচার – যেমন হতে পারে ক্যালকুলেটর আছে, ইউজার ইনপুট ইন্ট্যার একশন আছে। এমন কাজ ১২,০০০ থেকে শুরু করতে পারেন।
৩/ অ্যাডভান্স ফিচার অ্যাপ– যেমন এলার্ম, ম্যাপ এগুলা ১৫,০০০ থেকে শুরু করতে পারেন।
৪/ সার্ভার ক্লায়েন্ট আর্কিটেকচার অ্যাপ – এই কাজটা সম্ভবত বেশি আসবে। যদি সার্ভার রেডি থাকে তাহলে ১৮,০০০ থেকে শুরু করতে পারেন। যদি সার্ভার আপনাকেই করতে হয় সেক্ষত্রে ২৫,০০০ থেকে শুরু করতে পারেন।
৫/ মাল্টিডাইমেশনার অ্যাপ – এগুলা হতে পারে একের মধ্যে অনেক কিছু। এগুলার ক্ষেত্রে উপরের চার ক্যাটেগরিতে ফেলে চার্জ করতে পারেন।

এখানে আমার চার্জিং ফরম্যাটটা বললাম। আপনারটা শেয়ার করতে ভুলবেন না যেটা অ্যান্ড্রয়েড ডেভেলপার্স কমিউনিটির জন্য ভালো হবে।

 

 

আরো পড়ুনঃ আমার অ্যান্ড্রয়েড ট্রেইনার হয়ে উঠা

Mosharrof Rubel

আমাকে ফেসবুকে পাবেন এখানেঃ মোশাররফ রুবেল

You may also like...

Leave a Reply