ডেভেলপার হিসাবে আমাদের মানসিকতা ও করনীয় ( পর্ব দুই )

( লেখকঃ শুভ্র পাল। ফাউন্ডার , WizardApps )

গত পর্বে ক্লায়েন্ট/কোম্পানিদের নিয়ে অনেক কিছু বললেও ডেভেলপার হিসাবে একটু চিন্তা করে দেখুন আজকের এই অবস্থার জন্য আমরা নিজেরাই কি দায়ী না? আমার মতে আমাদের দেশের অ্যাপ ডেভেলপারদের অবশ্যই ওয়ার্ল্ড ক্লাস অ্যাপ ডেভেলপ করার ক্ষমতা বা মেধা রয়েছে, কিন্তু সঠিক নির্দেশনার অভাবে তা সম্ভব হচ্ছেনা। ডেভেলপার হিসাবে অন্তত এতদিনে এই কথাটা জেনে গেছেন আমাদের দেশ ছাড়া টেকনোলজিকালি অ্যাডভান্সড দেশগুলোতে ডেভেলপার নেটওয়ার্কটা কতটা শক্তিশালী। আমাদের দেশের ডেভেলপার নেটওয়ার্কটা দুর্বল হওয়ার সুযোগটাই নিচ্ছেন এদেশের ক্লায়েন্ট/কোম্পানিরা। তাই তাদের দোষ দেয়ার আগে চলুন দেখে নিই আমরা কি ভুল কাজগুলো করছিঃ

১। প্রথমেই বলতে হয় আমাদের ডেভেলপার নেটওয়ার্ক এর বেহাল অবস্থার কথা। কে কেমন ডেভেলপার সেই যোগ্যতা নির্ণয় করার কোন মাপকাঠি না থাকায় একজন ক্লায়েন্ট/কোম্পানি
মার্কেটে এসে যখন তার কাজের কথা বলছেন তখন একই কাজের জন্য ৪ বছরের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন একজন ডেভেলপার এবং ১ মাসের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন একজন ডেভেলপার অ্যাপ্লাই করে একটি অসম প্রতিযোগিতার সৃষ্টি করছেন। কারন খুব কম ক্লায়েন্ট/কোম্পানি আছেন আমাদের দেশে যারা এই দুজনকে আলাদা মনে করতে পারেন। তাদের দরকার কম পয়সায় বেশি কাজ! কোয়ালিটি যেমনই হোক না কেন! যার ফলাফল হিসাবে ভালো অ্যাপের কাজ করলেও তা মার্কেটে হিট হচ্ছেনা।

২। উপরের এই অসম প্রতিযোগিতা আরও অসম হচ্ছে অ্যাপের ডেভেলপমেন্ট রেটের ক্ষেত্রে। একটি Low ক্যাটাগরির অ্যাপের জন্য একজন বেশি অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ডেভেলপার তার সম্মানীকে যখন 30K বলছেন ঠিক একই সময়ে একজন কম অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ডেভেলপার যেমন তার সম্মানীকে 5K বলছেন। স্বভাবতই একজন ক্লায়েন্ট/কোম্পানি দ্বিতীয় জনকে বেশি প্রাধান্য দিচ্ছেন এবং দুঃখের বিষয় এই সমস্যাটা ডেভেলপার হিসাবে আমরাই তৈরি করছি!

৩। একজন ক্লায়েন্ট/কোম্পানি একটি অ্যাপের জন্য যখন 10K বলছেন তখন অন্য ডেভেলপার যেন কাজটি না নিতে পারে আপনি নিজেই তখন 8K বলছেন। একটি কথা মনে রাখবেন এ ক্ষেত্রে, কাল অন্য একজন ডেভেলপার এই কাজটিই আপনার কাছ থেকে 5K তে নিয়ে নিবে। তখন আপনি কি করবেন? এভাবে কি আমরা নিজেরাই আমাদের ডেভেলপমেন্ট রেট নামিয়ে
দিচ্ছিনা? সাথে সাথে ডেভেলপার হিসাবে আমাদের মর্যাদাকেও? এভাবে চলতে থাকলে কিছুদিন পরে ডেভেলপার হিসাবে নিজেদের পরিচয় দিতে আমরা লজ্জাবোধ করব।

৪। মাথা খাটিয়ে আইডিয়া বের করতে পারিনা বলে যা ইচ্ছা তাই বানিয়ে প্লেস্টোরে ছেড়ে দিচ্ছি। বাংলাদেশ রিজিয়ন থেকে অধিকাংশ ১৮+ অ্যাপে প্লেস্টোর ভর্তি। আপনি হয়ত মারমার
কাটকাট ব্যবসার জন্য তা করছেন, কিন্তু ঠাণ্ডা মাথায় ভেবে দেখুন আপনার অ্যাপটি প্লেস্টোরে আপনার দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করছে। এভাবেই জাতি হিসাবে আমাদের কুরুচিকে বিশ্বের সবার সামনে তুলে ধরছি যা অত্যন্ত লজ্জাজনক! এভাবে আর কতদিন?

৫। একটু অভিজ্ঞতাসম্পন্ন হলেই জুনিয়র ডেভেলপারদেরকে আপনি আর সাহায্য করার প্রয়োজন মনে করছেন না, বরং তাদের আইডিয়া বা কাজগুলোকে নিয়ে হাসাহাসি করছেন। এমনকি সমসাময়িক অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ডেভেলপারদেরকে এড়িয়ে চলছেন যেন আপনার দাম কমে না যায়। মজার ব্যাপার হচ্ছে, আপনি নিজেও একসময় জুনিয়র ছিলেন এটা ভুলে যাচ্ছেন। অন্যের মতামতকে প্রাধান্য দেয়া, সমসাময়িক ডেভেলপারদের সাথে সুষম সম্পর্ক এবং জুনিয়র ডেভেলপারদেরকে সঠিক দিক নির্দেশনা না দিতে পারাটা একজন প্রকৃত ডেভেলপার হিসাবে আপনার ব্যর্থতা!

৬। কম সম্মানীতে এবং বসের অর্ডার শুনে কাজ করতে করতে আমরা ভুলে গেছি ডেভেলপার হিসাবে আমাদের প্রকৃত মর্যাদাকে, বেশিদূর না গিয়ে আপনার পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর ডেভেলপারদের লাইফস্টাইল এবং বেতন কাঠামো দেখুন। বুঝে যাবেন আপনার প্রকৃত অবস্থা কোথায়!

করনীয়ঃ

আগেই বলেছি, ডেভেলপার হিসাবে আমরা যে অগোছালো উদ্দেশহীন পথে চলছি তাতে কিছুদিন পরে ডেভেলপার হিসাবে নিজেদের পরিচয় দিতে আমরা লজ্জাবোধ করব। যেহেতু এখনও
ডেভেলপারদের নির্দেশনা দেয়ার মত কোন কার্যকরী উপায় আমরা করতে পারিনি তাই পুরো বিষয়টা নিয়ে সব ডেভেলপারকেই ভাবতে অনুরোধ করছি।

একটা বিষয় এখানে লক্ষণীয়, আমরা ডেভেলপাররা আমাদের দেশের ক্লায়েন্ট/কোম্পানিদের রুচিকে ইতোমধ্যেই 5K তে নামিয়ে এনেছি। এখান থেকে উপরে উঠতে গেলে সামগ্রিকভাবে
সবাইকে কাজ করতে হবে। সবাইকে একটি যথাযথ নির্দেশনা মেনে কাজ করতে হবে। তাহলেই একমাত্র আমাদের দুরাবস্থা কাটানো সম্ভব হবে।

কি কি করনীয় হতে পারে আমাদের সে সম্পর্কে আমি আমার কিছু আইডিয়া শেয়ার করছিঃ

১। প্রথমেই আমাদের ডেভেলপার নেটওয়ার্ককে শক্তিশালী করতে হবে। অ্যাপ ডেভেলপার অ্যাসোসিয়েশান ধরনের কিছু হতে পারে যা গঠিত হতে পারে এই গ্রুপ থেকেই। কারন এটি এখন দেশের অ্যান্ড্রয়েড ডেভেলপারদের সবচেয়ে বড় গ্রুপ। মূলত অ্যাসোসিয়েশানই পুরো দেশের ডেভেলপারদের কন্ট্রোলিং পাওয়ার হিসাবে কাজ করবে। Low, Mid এবং High রেঞ্জের অ্যাপের জন্য সেন্ট্রাল অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট রেট নির্ধারিত হবে যা ডেভেলপাররা মেনে চলবে। নিয়ম বহির্ভূত কাজের জন্য ডেভেলপারদেরকে ব্যান করা হবে। ডেভেলপারদের স্ট্যান্ডার্ড নির্ধারণের ক্ষমতাও এই অ্যাসোসিয়েশানের থাকবে।

২। উপরের কাজটি সঠিকভাবে করতে পারলে ডেভেলপার হিসাবে আমাদের মর্যাদা এবং ডেভেলপমেন্ট রেট অনেকটাই পুনরুদ্ধার করা সম্ভব হবে। কারন তখন মার্কেটে আসার আগেই
একজন ক্লায়েন্ট/কোম্পানি বুঝতে পারবেন তার অ্যাপের জন্য কত খরচ করতে হবে। যেমনঃ ডেভেলপার অ্যাসোসিয়েশান যদি Low লেভেল অ্যাপের ন্যূনতম ডেভেলপমেন্ট রেট 10K
নির্ধারণ করে, তখন ওই ক্লায়েন্ট/কোম্পানি তা পূরণ করতে বাধ্য থাকবে এবং কম ও বেশি অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ডেভেলপারদের ভেতর বৈষম্য কমে আসবে।

৩। বর্তমানে আমাদের ডেভেলপারদের ভাগ্য অনেকটাই ক্লায়েন্ট/কোম্পানিদের উপর নির্ভরশীল। এজন্যই প্রাপ্য সম্মানী নিয়ে তারা ডেভেলপারদের হেনস্তা করেন। কিন্তু এই কন্ট্রোলিং পাওয়ার যতদিন আমরা নিজেদের হাতে আনতে না পারব ততদিন অবস্থার পরিবর্তন সম্ভব নয়। অ্যাপ ডেভেলপার অ্যাসোসিয়েশানের মাধ্যমে আমরা যখন সবাই ঐক্যবদ্ধ হব তখন অভিজ্ঞতা ও পারস্পারিক সমঝোতার ভিত্তিতে গ্রুপ করে আমরা নিজেরাই অ্যাপ ডেভেলপ করতে পারব এবং এভাবেই ছোট ছোট স্টার্টআপের জন্ম হবে যা একসময় মিলিয়ন/ বিলিয়ন ডলারের ব্যবসা সৃষ্টি করবে কারন সেরকম ম্যান পাওয়ার, অভিজ্ঞতা, মেধা ও কোয়ালিটি সবই আমাদের আছে। ক্লায়েন্ট/কোম্পানি দের নন টেকনোলজিকাল ম্যানেজমেন্ট এখানে না থাকাতে সফলতার সম্ভাবনা বেশি থাকবে।

 

আরো পড়ুনঃ  ক্যারিয়ার হিসেবে অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট

Mosharrof Rubel

আমাকে ফেসবুকে পাবেন এখানেঃ মোশাররফ রুবেল

You may also like...

Leave a Reply